Sexy akhi alamgir philadelphia dating scene

Posted by / 01-Nov-2019 09:08

Sexy akhi alamgir

”–Obviously সেক্সের এঙ্গেল থেকে।মাল ছাড়ার কিছুক্ষণ পর,এই দশ পনের মিনিট পর আমার বাড়াটা সবসময় প্রমান সাইজ থেকে একটু বেশিই ছোট হয়ে যায়। লম্বায় কানি আঙ্গুলটার মত হয়ে যায়। কথা বলতে বলতে ও আমার বাড়াতে হাত দিল। দিয়েই চমকে শোয়া থেকে উঠে বসে পড়লো। চোখ বড় বড় করে বলল, “তোমার বাড়াটা এত ছোট হয়েছে কিভাবে?

”আমি হেসে বললাম, “মাল ছাড়ার পর এটা একটু ছোট হয়ে যায়।”ও হাসতে হাসতে বলল, “খুবই মজার জিনিস তো। একটু আগেও আমি দেখলাম প্রায় ছয় ইঞ্চির একটা এত বড় একটা জিনিস। সেটা এখন মাত্র আড়াই ইঞ্চি হয়ে গেল?

”আমি ওকে কি উত্তর দিব বুজতেছিলাম। কারণ আমার মনে হচ্ছিল হাত দিয়েই বেশি মজা লাগবে। মুখ দিয়ে চুষলে মাল বের হতে চাইলেও ফেলতে পারবো না। এই কথা গুলা আমি ওকে বললাম। ও সাথে সাথে আমার দ্বিধা ভেঙে দিয়ে বলল, “কোন সমস্যা নাই। মাল বের হলে আমার মুখে ফেলে দিয়ো। মাইন্ড করবো না। তুমি শুধু একটু খাটে পা ঝুলিয়ে শোও।” আমি ওর কথা মত খাটের দৈর্ঘ্য বরাবর হাঁটু থেকে পা ঝুলিয়ে শুয়ে রইলাম। ও নিচে হাঁটু গেড়ে আমার বাড়া চুষছিল। সত্যি বলছি আমার তখন মনে হচ্ছিল দুনিয়াতে আমার আর কিছুই দরকার নাই। যা পাবার তা আমি পেয়ে গেছি। অ-নে-ক মজা পাচ্ছিলাম। ও প্রায় পনেরো মিনিট ধরে ছোট্ট রিশাতকে নিয়ে খেলছিল। আমার মালও প্রায় বের হয়ে এসেছিল। কিছুক্ষণ পর টের পেলাম আমার বাড়া প্রায় ফেটে যাচ্ছে। আর ওদিকে ও চুষেই যাচ্ছিলো। মাল না ফেলা ছাড়া কোন উপায় ছিল না। যদিও ও অভয় দিয়েছিল কিন্তু আমার কাছে সংকোচ লাগছিল ওর মুখে মাল ফেলতে। একটু পর অবশ্য এসব চিন্তার অবকাশও পেলাম না। মাল বের হয়ে গেল। ও মাল পড়ার পরও কিছুক্ষণ চুষলো। সব মাল বের হয়ে যাবার পর ও ওয়াশরুমে গিয়ে কুলি করে আসলো। আমার খুব ক্লান্ত লাগছিল। বিয়ের আগে মাল ফেললে আমার মাঝে কেমন যেন একটা ক্লান্তি আর অপরাধবোধ কাজ করত। এটার কারণ আমি জানি না। তবুও লাগত। কিন্তু সেইবার আমার অপরাধবোধটা ছিল না।ও এসে বলল, “তুমি আজকে অনেক Excited ছিলা,না?

–হুম। তোমাকে অন্য এঙ্গেল থেকে আজকে দেখলাম তো,তাই।আমার পাশে শুতে শুতে ও একটু হেসে বলল, “কোন এঙ্গেল থেকে?

In You Tube there is also some videos of Akhi Alamgir.

As an alternative to save some of the pictures are taken that it be heard on this Compact Disk, Flash Drive, Mobile Phone memory.

” সপ্না চোখ পাকিয়ে আমার দিকে তাকায় বলল।আমি সাথে সাথে বললাম, “না ঠিক তা না, It’s just boring.

I can’t explain it.”–বাদ দাও। তোমার মেয়েদের ব্যাপারে কোন ইন্টারেস্ট বা আইডিয়া আছে?

Though it was outside of Bangladesh, basically United States of America but recently this video is in the hands of the many young people.–ঠিক আছে।এই ছেলেটা সব কিছুতেই অনেক চেষ্টা করত। অনেক পরিশ্রম করত। কিন্তু চিন্তা করত জটিল করে। যেটার জন্য ও অনেক সহজ জিনিসও বুঝত না। আমি জানতাম ও আঁকতে পারবে না। এই জন্যই ওরে এটা আঁকতে দিয়েছিলাম। আমার যেই লাভ টা হল সেটা হল ঘটঘটানি বন্ধ। আমি দেখলাম ও কম্পাস আর স্কেল নিয়ে বসতেছে। আমি তো খুশি।শাওন এমনিতে ভালো ছেলে। সারাদিন পড়াশুনায় ডুবে থাকত। অন্যসব ছেলেরা যা করত ও ঐগুলার কিছুই করত না। ফার্স্টইয়ারের ছেলে গুলা অনেক রক্ত গরম টাইপের হয়। নতুন ভার্সিটি উঠছে,তার উপর ঢাকা শহরের বাতাস। সব কিছু মিলায়া একেবারে রঙিন দুনিয়া। আমাগো হলেই কয়েকটা পোলা ছিল যারা মদ,আফিম,হিরোইন,গাজ� �, আর মাইয়া লইয়া সারাদিন টাল হইয়া থাকত। আমি জানতাম প্রতিটা রুমেই একটা দুটো এরকম থাকেই। আমি যখন প্রথম যাই হলে থাকতে,তখন যেই রুমে ছিলাম সেটাতে দুটো আর্কিটেক্ট ভাইয়া ছিল। দেখতাম সারাদিন টাল হয়ে থাকত। আমারেও কয়েকদিন মদ নিতে কইছিল। নিছিলামও,কিন্তু খাইতে পারি নাই। এত জঘন্য জিনিস মনে হয় আমি এর আগে টেস্ট করি নাই। মদের থেকে মনে হয় মুতও বেশি মজা। আর সিগারেটের গন্ধই সহ্য করতে পারি না,গাঞ্জা তো দূরে থাক। কয়েকদিন অবশ্য পর্ণো মুভি দেখার চেষ্টা করেছিলাম। কিন্তু সেটাও ভালো লাগে নাই। সব গুলা একই রকম। কোন বৈচিত্র নাই। যখন দেখতাম তখন আমার এক্সাইটমেন্টই হইত না। তাই ঐটাও বেশিদিন করতে পারি নাই। হলের সবাই জানত আমাগো রুমে কোন রকমের উল্টাপাল্টা কাজ হইত না। এইজন্য একটা সুন্দর নামও ছিল আমাদের রুমটার। সেটা হল পবিত্র রুম। বুয়েটের জেরুজালেম (পবিত্র নগরী,যারা মুসলমান তারা হয়ত জেনে থাকবেন)। আর আমাগোরে মানে আমারে আর শাওন রে কইত পূত,পবিত্র মানুষ অথবা শিশু। পরে অবশ্য শিশু নামটাই বেশ প্রচলিত ছিল। তবে আমি যে ড্রিংক্স করতাম না তা একেবারে ঠিক না। আমার ওয়াইনটা খুব প্রিয়। আইস ওয়াইনটা বেশি লাইক করি। এখন সপ্তাহে অন্তত একবার এটা টেস্ট করি। আগে মাসে একবারও পাইতাম না। ব্রান্ডের মাঝে লাইক করতাম এলসিনো আর রেড সেভেন। অদ্ভুত জিনিস দুইটা। তবে প্রচুর দাম ছিল তখন। একটা এলসিনো’র বোটল ছিল ৪ থেকে ৫ হাজার টাকা। যেটা ছিল আমার সারা মাসের খরচ। আর পোলাপাইনরাও আনত না। কইত নেশা নাকি জমে না। অবশ্য মাঝে মধ্যে স্যারের বাসায় গেলে খাওয়া যাইত।একটু পর দেখলাম আমার মোবাইলের লাইটটা একবার জ্বলতাছে একবার নিভতাছে। হাতে নিয়ে দেখি সপ্নার ফোন। সপ্না এখন আমার বউ কিন্তু তখন আমার গার্লফ্রেন্ড ছিল। ও তখন ডি.এম.সি.তে পড়ত। সেকেন্ড ইয়ারে। পরে এফ.সি.পি.এস’ও শেষ করছে। এখন সুন্দর ঘরে বসে আছে। সে নাকি টায়ার্ড হয়ে গেছে। ডাক্তারি করতে পেইন লাগে। এই মেয়েটাকে যখন আমি প্রথম দেখেছিলাম তখনই আমার মনে হয়েছিল মেয়েটার মাথায় কিছু না কিছু ছিট তো আছেই। আর এখনও জীবনের প্রতিটা ডিসিশনে সেটার পরিচয় খুব ভাল ভাবেই দিচ্ছে। তবুও কেন জানি মেয়েটাকে ভাল লাগে। হয়ত মানুষ ভালো এই জন্য।ফোন রিসিভ করতেই সেই জ্বালাময়ী কণ্ঠ কানে এল।–হ্যালো,রিশাত,কেমন আছো? –আমি ভীষণ ভালো আছি। তার উপর তোমার জন্য একটা, না না, অনেকগুলা সারপ্রাইজ আছে, তাই আরও বেশি বেশি ভালো।–কি সারপ্রাইজ? –না,ভার্সিটি বন্ধ হয়ে গেছে। আগামী সাত দিন বন্ধ থাকবে।–“তাই নাকি?”–হ্যাঁ ভাইয়া,মুনীম স্যার এসে বলে গেলেন এই মাত্র। আপনাকে ঘুমে পেয়ে আর ডিস্টার্ব করেন নাই। আর এই জন্যই দরাজাটা খোলা।ও হয়ত আমার কাছ থেকে অন্ততঃ একটা হাসি আশা করছিল। কিন্তু আমি সেই একই নির্লিপ্ত কণ্ঠে বললাম, “ভাল।”এই বলে গেলাম টয়লেটে। ভীষণ হাগা ধরছিল। পেশাবও ধরছিল প্রচণ্ড। আমাদের টয়লেটটা রুম থেকে একটু দূরে ছিল। রুমের সামনের করিডোরটা দিয়ে হেঁটে যাওয়া লাগত। পথে আবার সুমনের সাথে দেখা। ও হল আমার ভাইয়ের মত। সেই ক্লাস ওয়ান থেকে এখনও আমার সাথে তার বন্ধুত্ব আছে। খুব ভালো ছেলে। তখন ও পড়ত আর্কিটেকচারে আর আমি পড়তাম কম্পিউটার সায়েন্সে। ওর ফ্যামিলিও তখন চট্টগ্রাম। দুইজন সবসময় একসাথে যাওয়া আসা করতাম। দেখা হওয়ার সাথে সাথে সুমন আমার দিকে একটা হাসি দিয়ে বলল, “দোস্ত,খালাম্মার লগে দেখা করতে যাবি না? –একটা সুষম সপ্তভুজ আঁকতে হবে। তাও আবার একটা কম্পাস আর স্কেল দিয়ে,পারবা?” বুঝলাম ওর কাছে বন্ধের নোটিশটা আগেই চলে এসেছে। ঐদিন ছিল শনিবার। তাই সেদিনই রওয়ানা হলে সাতদিনই আম্মুর সাথে থাকতে পারবো এই ভেবে আমি আর ও দুইজনই ঐ দিনই রওয়ানা দেয়ার প্ল্যান করলাম।টয়লেট কর্ম শেষ করে যখন রুমে আসলাম তখন দেখি শাওন সেই পুরোনো ঘটঘটানি শুরু করছে। ওরে ডাক দিলাম, “শাওন? –হ্যাঁ,পারবো।–তাহলে তুমি আঁক। আঁকা হইলে আমাকে দেখাইও। ঠিক আছে?

Sexy akhi alamgir-17Sexy akhi alamgir-22Sexy akhi alamgir-50

”আমি বললাম, “চা ই দাও। Deep sugar with light liquor.”–“ঠিক আছে,আমি আনতেছি। তারপর দুইজনে মিলে গল্প করবো।” এই বলে ও চা আনতে গেল।আমি স্পোর্টস চ্যানেল গুলা খুজতেছিলাম। HBO Cross করার সময় দেখলাম, টাইটানিক দেখাইতেছে। আমি HBO তে একটু hold করছিলাম। ঠিক ঐ মুহূর্তে সপ্না চা এর মগ হাতে এসে ঢুকল। টিভিতে চোখ দিয়েই চিৎকার করে হাত নাড়তে নাড়তে বাচ্চা মেয়েদের মত বলে উঠল, “টাইটানিক, টাইটানিক আমি দেখবো, আমি দেখবো।” তার হাতে যে চা আছে সেটার কথা সে একদমই ভুলে গেল। ফলে যা হবার তাই হল। খানিকটা চা পড়ে গেল নিচে।চা খাওয়া হলে আমরা দুইজন এক কাঁথার নিচে লাইট নিভিয়ে জড়াজড়ি করে মুভিটা দেখলাম। কাঁথাটা কিভাবে আসল সেটা একটু বলি। মুভিটা দেখার জন্য নাকি খুব রোমান্টিক পরিবেশ লাগে। সপ্নার কথা। তাই সে তখন এ.সি’তে রুম টেম্পারেচার ২০ ডিগ্রী তে সেট করে দিল। ওর বক্স খাটের ড্রয়ার থেকে একটা কাঁথা বের করে গায়ে দিয়ে আমাকে জড়িয়ে পুরো মুভিটা শেষ করল। আমিও খুব এনজয় করেছিলাম মুভিটা। টাইটানিক আগেও দেখছি এই ঘটনার পরেও দেখছি। কিন্তু ঐ বারের মত মজা পাই নাই।মুভিটা শেষ করে সাড়ে ন’টার দিকে আমরা খেতে বসলাম। ও কাচ্চি বিরানী রান্না করছিল । অনেক মজা হয়েছিল। খেয়েছিলামও প্রচুর। সপ্না কথায় কথায় বলল ওর আব্বু নাকি রেড সেভেন এনেছে। আর সেটা তখন ওদের ফ্রিজেই ছিল। আমি শুনে তো খুশি। যাক অনেক দিন পরে খাওয়া যাবে। খাওয়া শেষ করে আমরা ফ্রিজ থেকে ওয়াইনের বোটল আর গ্লাস নিয়ে সপ্নার বেডরুমে গিয়ে বসলাম। দুজন মিলে গল্প করছিলাম। তখন বাজে সাড়ে দশটার মত। হঠাৎ কথা উঠল সেক্স নিয়ে ।–আচ্ছা,রিশাত,তুমি কি পর্ণোমুভি দেখ?

One thought on “Sexy akhi alamgir”